Pitara logo

কলাবতী রাজকন্যা - (২) - (৩)

(২)

দশ মাস দশ দিন যায়, পাঁচ রাণীর পাঁচ ছেলে হইল। এক-এক ছেলে যেন সােনার চাঁদ! ন-রাণী আর ছােটরাণীর কি হইল? বড়রাণীদের কথাই সত্য; ন-রাণীর পেটে এক পেঁচা আর ছােটরাণীর পেটে এক বানর হইল।

বড় রাণীদের ঘরের সামনে ঢােল- ডগর বাজিয়া উঠিল। ন-রাণী আর ছােটরাণীর ঘরে কান্নাকাটি পড়িয়া গেল।

রাজা আর রাজ্যের সকলে আসিয়া, পাঁচ রাণীকে জয়ডঙ্কা দিয়া ঘরে তুলিলেন। ন-রাণী, ছােটরাণীকে কেহ জিজ্ঞাসাও করিল না। কিছুদিন পর, ন-রাণী চিড়িয়াখানার বাঁদী আর ছােটরাণী খুঁটেকুড়ানী দাসী হইয়া দুঃখে কষ্টে দিন কাটাইতে লাগিলেন।

(৩)

ক্রমে ক্রমে রাজার ছেলেরা বড় হইয়া উঠিল; পেঁচা আর বানরও বড় হইল। পাঁচ রাজপুত্রের নাম হইল- হীরারাজপুত্র, মাণিকরাজপুত্র, মােতিরাজপুত্র, শঙ্খরাজপুত্র আর কাঞ্চনরাজপুত্র।

পেঁচার নাম হইল ভূতুম,
আর বানরের নাম হইল বুদ্ধুু।

পাঁচ রাজপুত্র পাঁচটি পক্ষিরাজ ঘােড়ায় চড়িয়া বেড়ায়। তাহাদের সঙ্গে সঙ্গে কত সিপাই লস্কর পাহারা থাকে। ভূতুম আর বন্ধু দুইজনে তাহাদের মায়েদের কুঁড়েঘরের পাশে একটা ছােট বকুলগাছের ডালে বসিয়া খেলা করে।

পাঁচ রাজপুত্রেরা বেড়াইতে বাহির হইয়া আজ ইহাকে মারে, কাল উহাকে মারে, আজ ইহার গর্দান নেয়, কাল উহার গর্দান নেয়; রাজ্যের লােক তিত-বিরক্ত হইয়া উঠিল।

ভূতুম আর বুদ্ধু, দুইজনে খেলাধুলা করিয়া, যার- যার মায়ের সঙ্গে যায়। বুদ্ধু মায়ের ঘুটে কুড়াইয়া দেয়, ভূতুম। চিড়িয়াখানার পাখীর ছানাগুলিকে আহার খাওয়াইয়া দেয়। আর, দুই-একদিন পরুপর দুইজনে রাজবাড়ীর দক্ষিণ দিকে বনের মধ্যে বেড়াইতে যায়।

ভূতুমের মা চিড়িয়াখানার বাঁদী, বুদ্ধুুর মা খুঁটে- কুড়ানী দাসী। কোনদিন খাইতে পায়, কোনদিন পায় না। বুদ্ধু দুই মায়ের জন্য বন জঙ্গল হইতে কত রকমের ফল আনে। ভূতুম ঠোঁটে করিয়া দুই মায়ের পান খাইবার সুপারী আনে। এই রকম করিয়া ভূতুম, ভূতুমের মা, বুদ্বু, বুদ্ধুুর মা’র দিন যায়।

একদিন পাঁচ রাজপুত্র পক্ষিরাজ ঘােড়া ছুটাইয়া চিড়িয়াখানা দেখিতে আসিলেন। আসিতে, পথে দেখিলেন, একটি পেঁচা আর একটি বানর বকুল গাছে বসিয়া আছে। দেখিয়াই তাঁহারা সিপাই লস্করকে হুকুম দিলেন– “ঐ পেঁচা আর বানরটিকে ধর, আমরা উহাদিগে পুষিব।” অমনি সিপাই- লস্করেরা বকুল গাছে জাল। ফেলিল। ভূতুম আর বুদ্ধুু জাল ছিড়িতে পারিল না। তাহারা ধরা। পড়িয়া, খাঁচায় বদ্ধ হইয়া রাজপুত্রদের সঙ্গে রাজপুরীতে আসিল।

চিড়িয়াখানা পরিষ্কার করিয়া ভূতুমের মা আসিয়া দেখেন, ভূতুম নাই! ঘুটে ছড়াইয়া বুদ্ধুুর মা আসিয়া দেখেন, বুদ্ধু নাই! ভূতুমের মা হাতের ঝাঁটা মাটিতে ফেলিয়া বসিয়া পড়িলেন, বুদ্ধুুর মা। গােবরের ঝাঁটা ছুঁড়িয়া ফেলিয়া দিয়া আছাড় খাইয়া পড়িলেন।

কলাবতী রাজকন্যা - (8) - (৫)